এক ঝাঁক বীর মুক্তিযোদ্ধার আলিঙ্গনের অপেক্ষায় নীলফামারী

নীলফামারী: নীলফামারী জেলা পরিষদের আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বছর ব্যাপী ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে জানো’ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হবে আগামীকাল শনিবার (৯অক্টোবর)। নীলফামারী কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার মাঠে দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে অনুষ্ঠান শুরু হবে।

সরেজমিনে দেখা যায় , মঞ্চসজ্জা,আলোকসজ্জা,আবাসন শেষ মুহূর্তের কাজ চলছে। কর্মব্যস্ত সময় পার করছে কর্মীরা । নীলফামারী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক এবং প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন নীলফামারী -২ আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে ।

নীলফামারী জেলা পরিষদ প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ অতুল মন্ডল জানান, অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলী সরকার বীর বিক্রম,বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মাহাবুব এলাহী রঞ্জু বীর প্রতীক,বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শাহজাহান কবীর বীর প্রতীক, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার গোলাম আজাদ বীর প্রতীক, বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ সাদরুজ্জামান হেলাল বীর প্রতীক,বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আনোয়ার হোসেন বীর প্রতীক,বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুল মান্নান বীর প্রতীক,বীর মুক্তিযোদ্ধা মিজানুর রহমান খান বীর প্রতীক,বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন আজিজুল হক বীর প্রতীক ।

তিনি জানান, অনুষ্ঠানে নীলফামারী জেলার ৬টি উপজেলার ৫০০জন বীর মুক্তিযোদ্ধা, সন্তান, শিক্ষার্থী এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত থাকবেন। জেলার বাইরে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ১৪টি জেলার বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন। উদ্বোধনী দিনে সম্মানিত অতিতিবৃন্দ ঢাকা ফেরার পথে সৈয়দপুর লায়ন্স স্কুল ও কলেজে শিক্ষার্থীদের সাথে ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে জানো’ কর্মসূচি অনুযায়ী জাতির পিতার আদর্শে ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শিক্ষার্থীদের অনুপ্রাণিত করতে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

নীলফামারী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন জানান, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে জানো কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, যুদ্ধকালীন কমান্ডারগণ, উত্তরাঞ্চলের ১৪ জেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা ও নীলফামারীর সর্বস্তরের মুক্তিযোদ্ধাগণ অংশ গ্রহণ করবেন। এই আয়োজন নীলফামারীর বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ ও প্রগতিশীল নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে এই প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে অনুপ্রাণিত করতে ভূমিকা রাখবে।

তিনি জানান , আমাদের অধিকাংশ সহযোদ্ধা মৃত্যুবরন করেছেন, প্রতিনিয়ত কমে আসছে আমাদের সংখ্যা। আমরা আগামী কালকের অন্ষ্ঠুানকে মিলনমেলায় পরিনত করতে চাই । একসাথে এতো মুক্তিযোদ্ধা একসাথে হবো, তিনি আরো জানান, একই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সংগ্রামী জীবন ও মহান মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কিত সাধারণ জ্ঞান ভিত্তিক পুস্তিকা ‘অন্বেষণ’ এর মোড়ক উন্মোচন করা হবে।

নীলফামারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোকলেছুর রহমান বিপিএম পিপিএম জানান , অনুষ্ঠানের বিষয়ে জেলা পুলিশ অবগত আছে । অনুষ্ঠান ও অতিথিবৃন্দদের সার্বিক নিরাপত্তা বিধানে জেলা পুলিশ কাজ করছে । উল্লেখ্য ,বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধকে জানো কর্মসূচির আয়তায় নীলফামারী জেলা পরিষদের অর্থায়নে বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ জেলার প্রায় পাঁচশতাধিক বিদ্যালয় ও কলেজে নিদৃষ্ট সময়ে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে মাতবিনিময় করবেন, জাতির পিতার সংগ্রামী জীবন ও মুক্তিযুদ্ধের গল্প শোনাবেন।

 

বিডি রয়টার্স/এসএস



আজকের সব খবর