ময়মনসিংহে ইউনিয়ন পরিষদের জমিতে বাড়ি নির্মাণ

ময়মনসিংহে ইউনিয়ন পরিষদের জমিতে বাড়ি নির্মাণ bd royters

ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার এনায়েতপুর ইউনিয়ন পরিষদের জমি বেদখল করে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতার বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে ফুলবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কবির হোসেন তালুকদার।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফুলবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আশরাফুল ছিদ্দিক।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, এনায়েতপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. বুলবুল হোসেন তাঁর ব্যক্তিগত প্রভাব খাটিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের পিছনে, পরিষদের জায়গায় বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করছেন। পরিষদের পক্ষ থেকে বাঁধা দিলেও তিনি কাজ বন্ধ করেননি। এনিয়ে প্রায় সময় মারমুখি অবস্থানের ঘটনা ঘটছে। ইতিমধ্যে ভবনের নিচতলার কিছু অংশ নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এনায়েতপুর ইউনিয়ন পরিষদের এক নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য রইছ উদ্দিন দুদু জানান, পরিষদের জমিতে সীমানা প্রাচীর না থাকার সুযোগে তা বেদখল করে বাড়ি নির্মাণের কাজ করছেন আওয়ামীগ নেতা বুলবুল। দখলকারীরা স্থানীয় ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষে জমি উদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছে না। আমরা চাই না জনগণের সম্পত্তি প্রভাবশালীরা বেদখল করুক।

ইউনিয়নের সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম বলেন, ১৯৬৮ সালে বুলবুলের নানা ইন্তাজ আলীর কাছ থেকে ইউনিয়ন পরিষদের নামে এক হাজার টাকায় সাব-কবলায় ৬৬ শতাংশ জমি ক্রয় করা হয়েছিল। ১৯৭৩ সালে এই পরিষদের মেম্বার ও পরে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলাম আমি। সম্প্রতি ভূমিদস্যু হিসেবে খ্যাত ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বুলবুল হোসেন পরিষদের ১৬ শতাংশ জায়গা বেদখল দিয়ে বহুতল ভবন নির্মাণ করছে। এটা অন্যায়, প্রশাসনকে হস্তক্ষেপ করা প্রয়োজন।

এনায়েতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কবির হোসেন তালুকদার জানান, পরিষদের জমি কারও ব্যক্তিগত সম্পদ নয়। এটা সরকার ও জনগণের সম্পত্তি। এটা উদ্ধার করাও সরকারের কাজ। পরিষদের পক্ষ থেকে গত ২৬ সেপ্টেম্বর লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। আশাকরি সমস্যা সমাধান হবে।

তবে জমি বেদখলের অভিযোগ অস্বীকার করে এনায়েতপুর ইউনিয়ন আওয়ামীগের সভাপতি বুলবুল হোসেন বলেন, এই জমি আমার মায়ের নামে দলিল ও খারিজ আছে। এটা পরিষদের জমি না। আমি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় আমার নামে অপপ্রচার চালাচ্ছে বর্তমান চেয়ারম্যান।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল ছিদ্দিক জানান, এনায়েতপুর ইউনিয়ন পরিষদের জমি নিয়ে বিরোধের একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। ইতিমধ্যে ভবন নির্মাণের কাজ বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। খুব শীগ্রই পরিষদের জমি মেপে সীমানা নির্ধারণ করে দেওয়া হবে।

ফুলবাড়িয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক সরকার বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিলনা আপনাদের কাছ থেকে শুনেছি। চেষ্টা করব সুন্দর একটা সমাধানের।

স্থানীয় জসিম উদ্দিন এবং সিরাজুল ইসলাম বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের জমি নিয়ে চেয়ারম্যান, মেম্বার ও বুলবুলের মধ্যে যে দ্বন্ধের সৃষ্টি হচ্ছে দ্রুত সমাধান না হলে যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

কোন অঘটন ঘটার আগেই সরকারী সার্ভেয়ারের মাধ্যমে পরিষদের জমি মেপে সীমানা নির্ধারণ করে দেওয়াটাই সকলের জন্য মঙ্গল হবে।

 

বিডি রয়টার্স/এসএস



আজকের সব খবর
সারাবাংলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত