সোমবার | ৩রা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | হেমন্তকাল | ১৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

About

করোনা নিয়ে এখনো যা জানার বাকি

আতঙ্ক আর সচেতনার অভাবে করোনাভাইরাস নিয়ে মানুষের মধ্যে নানা বিভ্রান্তির তৈরি হয়েছে। নানা গুজবে কান দিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়ছেন মানুষজন। বিজ্ঞানীদের মতো সাধারণ মানুষের মধ্যেও রয়েছে করোনা নিয়ে নানা প্রশ্ন। যার উত্তর খুঁজছে পুরো বিশ্ব। বিবিসির বরাত দিয়ে এমনই কিছু প্রশ্ন–উত্তর তুলে ধরা হয়েছে বিডিরয়টার্সের পাতায়।

আক্রান্তের সংখ্যা আসলে কত?
ইতোমধ্যে পরীক্ষা করে লাখ লাখ মানুষের শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে। তবে অনেক গবেষকদের ধারণা, এই সংখ্যাটি মোট আক্রান্তের একটি অংশ মাত্র। বিষয়টিকে আরও বিভ্রান্তির মধ্যে ফেলে দিচ্ছে, যাদের মধ্যে সংক্রমণ ঘটেছে কিন্তু কোনো উপসর্গ সেভাবে এখনো প্রকাশ পায়নি।
কারও শরীরে ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটলে সাধারণভাবে তার শরীরে ওই ভাইরাসের বিরুদ্ধে এন্টিবডি তৈরি হয়। যদি সেই এন্টিবডি তৈরির একটি ভালো পদ্ধতি পাওয়া যায়, তাহলে ভবিষ্যতে হয়তো আক্রান্তের সংখ্যা সম্পর্কে আরও ভালো ধারণা পাওয়া যাবে।

কতটা প্রাণঘাতী এই ভাইরাস?
আক্রান্তের সংখ্যা নিশ্চিত করে জানা না গেলে, মৃত্যুহারও সঠিকভাবে বলা সম্ভব না। বিভিন্ন দেশে আক্রান্ত ও মৃত্যুর পরিসংখ্যান হিসাব করে বলা যায়, এখন পর্যন্ত মৃত্যুহার ৫ শতাংশের কম। তবে আক্রান্ত হলেও উপসর্গ দেখা যায়নি এমন রোগীর সংখ্যা বেশি হলে মৃত্যুহার কমে আসবে।

কী কী উপসর্গ
করোনা রোগের প্রাথমিক উপসর্গ জ্বর ও শুকনো কাশি। যেগুলো থাকলে সংক্রমণ হয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হয়। এছাড়া গলাব্যথা, মাথাব্যথা এবং কারও কারও ক্ষেত্রে ডায়রিয়ার মতো উপসর্গও হয়ে থাকে। কিছু ঘটনায় রোগীর গন্ধ নেওয়ার ক্ষমতা লোপ পাওয়ার কথাও এসেছে। আবার সর্দি কিংবা হাঁচির মতো উপসর্গ, যেগুলো সাধারণ ফ্লুতে দেখা যায়, সেরকমও অনেকের মধ্যে দেখা যেতে পারে।
গবেষণা বলছে, উপসর্গ প্রকাশ না পাওয়ায় অনেকেই হয়তো নিজেদের অজ্ঞাতে ভাইরাসটি বহন করছেন এবং অন্যদের মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছেন।

শিশুদের থেকে ভাইরাস ছড়ানোর ঝুঁকি কতটুকু?
পরিসংখ্যান বলছে, এই ভাইরাসে শিশুদের আক্রান্ত হওয়া বা মৃত্যুর হার অন্য বয়সশ্রেণির তুলনায় অনেক কম। তবে ঝুঁকির বিষয় হচ্ছে, শিশুদের থেকে বড়দের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। কারণ তারা বড়দের কাছে যায়, মাঠে খেলতে যায়। তবে করোনা শিশুদের মাধ্যমে কতটা ছড়াচ্ছে, সেই চিত্রটি এখনো স্পষ্ট নয় গবেষকদের কাছে।

করোনাভাইরাস কোথা থেকে এলো
গত ডিসেম্বরের শেষে চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে এক বাজার থেকে এই ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়েছে বলে ধারণা করা হয়। সার্সের করোনাভাইরাসের জ্ঞাতি ভাই এ নতুন ভাইরাসকে সার্স–সিওভি–২ নামেও ডাকা হচ্ছে। বাদুরে এই ভাইরাস দেখা গেলেও একটি মধ্যবর্তী কোনো প্রাণীর মাধ্যমে মানুষের শরীরে এসেছে বলে মনে করা হয়। কিন্তু গবেষকদের কাছে সেই যোগসূত্রটি এখনও স্পষ্ট নয়।

Translate »