ভ্যানচালক মোতাহারকে ২লাখ টাকার চুক্তিতে হত্যা

ভ্যানচালক মোতাহারকে ২লাখ টাকার চুক্তিতে হত্যা bd royters

মাদারীপুর: ২লাখ টাকার চুক্তিতে ৬জন ভারাটে খুনিদের সাথে মজুমদারকান্দি গ্রামের ভ্যানচালক মোতাহার দর্জিকে হত্যার চুক্তি করে এমারত ফরাজী। ভ্যানচালক মোতাহার দর্জির সাথে একই এলাকার এমারত ফরাজীর সাথে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জেরে দুই লাখ টাকায় ভাড়াটে খুনি দিয়ে মোতাহারকে হত্যার পরিকল্পনা করে এমারত।

ঘটনার দিন হত্যাকান্ডে সরাসরি অংশ নেয় এমারতসহ ৭জন। ভাড়াটে খুনিদের অগ্রিম এক লাখ টাকাও দেয়া হয়। মূলত জমি দখল নেয়ার জন্য ভ্যানচালককে হত্যা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

সোমবার দুপুরে মাদারীপুর পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল এ জানান। তিনি আরো বলেন, গত ২৩ মে রাজৈরের মজুমদারকান্দির একটি পাটক্ষেত থেকে ভ্যানচালক মোতাহার দর্জির রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ২৫ মে রাজৈর থানায় অজ্ঞাত আসামী করে নিহতের স্ত্রী সালমা বেগম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় থানা পুলিশ ও গোয়েন্দা পুুলিশ অভিযান চালিয়ে গত ০৯ জুন রাজৈর উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ইলিয়াস, আনোয়ার, মহিদুল ও এমারতকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে ১০ জুন তাদের আদালতে পাঠানো হয়। আদালত প্রক্যেককে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এদের মধ্যে ইলিয়াস হত্যাকান্ডে অংশ নেয়ার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেয়। এর জবান বন্দিও ভিত্তিতে গত বুধবার রাজৈর উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের পাঠানো হয় আদালতে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো, রাজৈর উপজেলার মজুমদারকান্দি গ্রামের মৃত নেছারউদ্দিন মোল্লার ছেলে ইলিয়াস মোল্লা (৪৮), একই গ্রামের রোকন মোল্লার ছেলে আনোয়ার মোল্লা (২০), জেলেম মোল্লার ছেলে মহিদুল মোল্লা (৪৮), বাসাবাড়ি গ্রামের মৃত আক্কাস ফরাজীর ছেলে এমারত ফরাজী (৫০)।

 

বিডি রয়টার্স/এসএস