গত ৫ বছরে ১১০০০ কোটি টাকার পণ্য আমদানি, রপ্তানি মাত্র পৌনে ৫০০ কোটি!

গত ৫ বছরে ১১,০০০ কোটি টাকার পণ্য আমদানি, রপ্তানি মাত্র পৌনে ৫০০ কোটি!

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি বাড়লেও রফতানি বাড়েনি। গত ৫ বছরে এই বন্দর দিয়ে সাড়ে সাড়ে ১১ হাজার কোটি টাকার পণ্য আমদানি হলেও রপ্তানি হয়েছে মাত্র পৌঁনে ৫শ কোটি টাকার পণ্য। ভারতীয় কর্তৃপক্ষের অসহযোগিতায় বাণিজ্য-বৈষম্য বাড়ছে বলে অভিযোগ করছেন ব্যবসায়ীরা।

আরও পড়ুন: জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার বিষয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী..

গত ৫ বছরের পরিসংখ্যান বলছে, ৮৫ লাখ ৫৬ হাজার মেট্রিক টন পণ্য আমদানি হয়েছে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে। যার আর্থিক মূল্য ১১ হাজার ৩৮৯ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। যা থেকে ১ হাজার ১৯৬ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় করেছে কাস্টমস। বিপরীতে রপ্তানি হয়েছে ৪শ ৮৩ কোটি টাকার ৭৩ হাজার ২৬ মেট্রিক টন পণ্য। আমদানি ও রপ্তানির বিরাট বৈষম্যের পেছনে ভারতীয় বিভিন্ন সংস্থা ও কর্তৃপক্ষের অনীহার কথা বলছেন বাংলাদেশের আমদানি-রপ্তানি ব্যবসায় জড়িতরা।

ব্যবসায়ীদের দাবি, বাণিজ্যভিত্তিক এ বন্দর দিয়ে একমাত্র রপ্তানি খাতেই বছরে কোটি কোটি ডলার আয় করা সম্ভব। কিন্তু কাগজপত্রের জটিলতা ও সুযোগ-সুবিধার অভাবে আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার। সমস্যা থাকার কারণে চাহিদার থাকার পরেও ভারতে শাক সবজি ,কলা, আলুসহ বেশ কিছু পণ্য রপ্তানি করতে পারছেন না ব্যবসায়ীরা। তবে দু’দেশের সরকার যদি আলোচনা মাধ্যমে সমস্যা গুলোর সমাধান করে তাহলে মাসে কোটি কোটি ডলারের পণ্য বাংলাদেশ থেকে রপ্তানি করা সম্ভব বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা।

আরও পড়ুন: দিল্লির আদালতে গোলাগুলি, গ্যাংস্টারসহ নিহত ৪ (ভিডিও সহ)..

হিলি স্থলবন্দরের আমদানি রফতানি গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশিদ হারুন জানান, ভারতের বাজারে বাংলাদেশি অনেক পণ্যের চাহিদা হয়েছে। তবে ভারতের ওপাশে কাস্টমসের ঊর্ধ্বতন কমকর্তা না থাকায় পণ্য রপ্তানির পরে ছাড় করতে অনেক বিড়ম্বনায় পরতে হয় ব্যাবসায়ীদের। যার কারণে রপ্তানিতে অনেকে নিরুৎসাহিত হচ্ছে।

বিডি রয়টার্স/এ কে জি



আজকের সব খবর