সুপারী গাছ নিয়ে দন্ধ, আহত তরুণের মৃত্যু

ময়মনসিংহের সদর উপজেলায় সুপারী গাছ নিয়ে দন্ধে শহিদুল্লাহ মিয়া (১৭) নামে তরুণকে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ।

ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহের সদর উপজেলায় সুপারী গাছ নিয়ে দন্ধে শহিদুল্লাহ মিয়া (১৭) নামে তরুণকে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নাছিমা বেগম নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত শহিদুল্লাহ মিয়া সদর উপজেলার ৬ নং চর ঈশ্বরদিয়ার চর লক্ষীপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের জাকারিয়ার ছেলে। সে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় আহত শহিদুল্লাহ। এর আগে সোমবার (১২ জুলাই) রাত সাড়ে ৯ টার দিকে সদর উপজেলার ৬ নং চর ঈশ্বরদিয়ার লক্ষীপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকাদার বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুপুরে নাছিমা নামে এক মহিলাকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

স্থানীয় সুত্র জানায়, লক্ষীপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামে জমি নিয়ে নিহত শহিদুল্লাহ’র বাবা জাকারিয়ার সাথে একই বাড়ির ফজলুর হক, আলাল উদ্দিনসহস তাদের ৫ ভাইয়ের সাথে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছে।

ঘটনার দিন ওই বিরোধপুর্ন জায়গার একটি মরা সুপারী গাছ কেটে বসার জন্য চাঙ (বসার জায়গা) বানায় শহিদুল্লাহ। সুপারী কাটা নিয়ে সোমবার রাত ৯ টার দিকে শহিদুল্লাহকে ডেকে নিয় পিটিয়ে গুরুতর আহত করে ফজলুল হক, আলাল উদ্দিনসহস তার ভাইয়েরা। পরে তার ডাক-চিৎকারে শহিদুল্লাহ স্বজনরা এগিয়ে আসলে ফজলুল হক, আলাল উদ্দিনরা চলে যায়।

পরে শহিদুল্লাহকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার প্রথমে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকালে শহিদুল্লাহ মারা যায়।

 

বিডি রয়টার্স/এসএস

খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত