অসুস্থ শরীর নিয়েও বাংলাদেশ রয়টার্সের উদ্বোধনে এসেছিলেন আনোয়ার হোসেন

অসুস্থ শরীর নিয়ে গত ৪ জুন বাংলাদেশ রয়টার্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লবে এসেছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলার প্রবীন সাংবাদিক সাপ্তাহিক চুয়াডাঙ্গা দর্পণের সম্পাদক ও প্রকাশক আনোয়ার হোসেন

চুয়াডাঙ্গা: অসুস্থ শরীর নিয়ে গত ৪ জুন বাংলাদেশ রয়টার্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লবে এসেছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলার প্রবীন সাংবাদিক সাপ্তাহিক চুয়াডাঙ্গা দর্পণের সম্পাদক ও প্রকাশক আনোয়ার হোসেন। ক্ষনিকের সময়ে প্রবীণ সাংবাদিক আনোয়ার হোসেনকে পেয়ে সবার চোখে খুশির আনান্দ ফুটে ওঠে।

তবে তিনি আর বেশিদিন থাকলেন না আমাদের মাঝে।বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় নিজ বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেন প্রবীন এই সাংবাদিক (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

আরো পড়ুন: চুয়াডাঙ্গার প্রথম পত্রিকা দর্পনের সম্পাদক আনোয়ার হোসেন আর নেই

আনোয়ার হোসেন চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রকাশিত দৈনিক প্রথম রাজধানী ও সাপ্তাহিক চুয়াডাঙ্গা দর্পণ পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও তিন ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

সাংবাদিক আনোয়ার হোসেনের ছেলে রাশেদ আনোয়ার জানান, তার বাবা দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসের জটিলতায় ভুগছিলেন। সম্প্রতি তিনি ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরে চুয়াডাঙ্গার বাড়িতে এনে কুষ্টিয়ার এক চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছিল।

তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ রয়টার্সের সম্পাদক কামাল উদ্দিন আহমেদ।  এক শোক বিবৃতিতে বাংলাদেশ রয়টার্সের সম্পাদক কামাল উদ্দিন আহমেদ আনোয়ার হোসেনের মৃত্যুতে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এ্যাড. মানিক আকবর গভীর শোক প্রকাশ করে বলেন, চুয়াডাঙ্গাবাসী এমন একজনকে হারাল যার অভাব কখনো পূরণ হবার নয়। চুয়াডাঙ্গার সাংবাদিকতার অঙ্গণে আনোয়ার হোসেন অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তার মৃত্যুতে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব ও জেলা প্রেসক্লাবের সদস্যরা গভীরভাবে শোকাহত।

বিডি রয়টার্স/এ.সি