স্বাস্থবিধি না মেনে ১৬০ ইউপিতে চলছে ভোটগ্রহণ

স্বাস্থবিধি না মেনে ১৬০ ইউপিতে চলছে ভোটগ্রহণ

ঢাকা: প্রথম ধাপের স্থগিত ১৬০টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮টা থেকে শুরু হয় এই ভোটগ্রহণ। চলবে টানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত। একই সঙ্গে দেশের ৯টি পৌরসভা ও স্থানীয় সরকার পরিষদের কয়েকটি উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

তবে এরই মধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগের ৪৪ প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। এদিন ১৬১ ইউপিতে ভোট হওয়ার কথা থাকলেও উচ্চ আদালতের নির্দেশনায় একটিতে ভোট স্থগিত করা হয়েছে।

এদিকে নিয়ম অনুযায়ী, ভোটগ্রহণের দিন নির্বাচনী এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হলেও সোমবার অনুষ্ঠিত ইউপি ও পৌর নির্বাচনী এলাকায় কোনো সাধারণ ছুটি থাকছে না।

নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনী এলাকায় পর্যাপ্ত সংখ্যক আইন শৃক্সখলা বাহিনী টহলে রয়েছে। তবে রাজনীতির মাঠে প্রধান বিরোধীদল বিএনপি এ নির্বাচনে প্রার্থী না দেওয়ায় নির্বাচন খানিকটা নিরুৎপাত হতে যাচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ জানিয়েছেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আমরা সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছি। ইতোমধ্যে আইন শৃক্সখলা বাহিনী এলাকায় টহলে রয়েছে, মাঠে কাজ করছে নির্বাহী ম্যাজিট্রেট।

তবে এরই মধ্যে, বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ প্রার্থীর লোকজনের সহিংসতায় এক বৃদ্ধা নিহত হয়েছেন।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়া এলাকাগুলোর মধ্যে বাগেরহাট, চট্টগ্রাম ও খুলনায় ৪৩টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন। এর মধ্যে বাগেরহাটের ৬৬টি ইউপির মধ্যে ৩৮টিতে আওয়ামী লীগের কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন না। অন্যগুলোতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা ভোটে লড়ছেন।

বাগেরহাটের বাইরে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে ৪টি এবং খুলনার ১টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। গত ৩ মার্চ প্রথম ধাপে ৩৭১টি ইউপির ভোটের তফসিল ঘোষণা করেছিল নির্বাচন কমিশন। পরে করোনা পরিস্থিতির কারণে ভোট স্থগিত করা হয়। সোমবার দেশের ৬টি জেলার ২৩টি উপজেলার ১৬১টি ইউনিয়নে ভোট নেয়া হবে। ১৬৭টি ইউপির ভোট স্থগিত হলেও চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীদের মৃত্যুজনিত কারণে পাঁচটি এবং বৈরী আবহাওয়ার কারণে কক্সবাজারের সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের ভোট এ মুহূর্তে অনুষ্ঠিত হবে না বলে ইসি সূত্রে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, প্রথমধাপে দেশের ১৯টি জেলার ৬৪টি উপজেলার ৩৭১টি ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য তফসিল ঘোষণা করেছিল। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ১১ এপ্রিল এসব নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। তবে করোনা সংক্রমণের কারণে ওই নির্বাচন স্থগিত করা হয়। পরে গত ২১ জুন স্থগিত ইউপির মধ্যে ২০৪টির ভোটগ্রহণ করা হয়।

বিডি রয়টার্স/এ.সি



আজকের সব খবর