সিলেটে বসত ঘরে পড়ে ছিলো শিক্ষিকা ও গৃহকর্মীর লাশ

জামালপুরে ড্রেজার শ্রমিকের লাশ উদ্ধার bd royters

সিলেট: সিলেটের ওসমানীনগরে বসত ঘর থেকে স্কুল শিক্ষিকাসহ দুজনের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। শনিবার দিনগত রাত ২টার দিকে ঘরের বাথরুমের জানালা ভেঙে মরদেহ দুটি উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহতরা হলেন, উপজেলার সোয়াইরগাও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ও বিজয় দের স্ত্রী তপতী রানী দে (৬০) ও তার বাসার কাজের সহযোগী গৌরাঙ্গ বৈদ্যে।

পুলিশ জানায়, শনিবার রাতে তপতী রানী দের স্বামী চিকিৎসক বিজয় দে ঘরে এসে দরজা বন্ধ দেখতে পান। অনেক্ক্ষণ ডাকাডাকি করার পরেও ভেতর থেকে সাড়া মিলেনি। পরে পুলিশকে খবর দেন তিনি।

খবর পেয়ে ওসমানী নগর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাসার বাথরুমের জানালা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে মেঝেতে তপতী রানী দে’র গলাকাটা মরদেহ ও পাশে গৌরাঙ্গ বৈদ্যর ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, তপতী রানী দে’র স্বামী ও ছেলেমেয়ে চিকিৎসক। স্বামী ও ছেলের সাথে তিনি সোয়ারগাঁও গ্রামের বাড়িতে থাকেন। শনিবার বিকেলে স্বামী ও ছেলে প্রাইভেট প্র্যাকটিসে গিয়েছিলেন। এসময় বাসায় কেবল তপতি ও গৌরাঙ্গ ছিলেন। সন্ধ্যার পর কোনো একসময়ে এ হত্যাকান্ড ঘটেছে।

ওসমানীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল বণিক বলেন, শিক্ষিকা তপতির স্বামী বিজয় দেব নিজের চেম্বার থেকে রাতে ফিরে বসত ঘরের দরজা বন্ধ পাওয়ায় স্ত্রীকে ডাকাডাকি করেও সাড়া শব্দ পান নি। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘরের দরজা ভেঙ্গে তপতীর লাশ উদ্ধার করে।

এ সময় মরদেহের পাশে গালায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় কাজের ছেলে গৌরাঙ্গের লাশও ঝুলছিলো। পরে লাশ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে কে বা কারা কি কারণে এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে সে ব্যাপারে এখনই কিছু বলা যাচ্ছেনা।